বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৩১st অক্টোবর ২০১৮

ভূমিকা

বাংলাদেশ শিল্প প্রতিষ্ঠান অধ্যাদেশ ১৯৭৬ এর বিধানবলে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও জাহাজ নির্মাণ করপোরেশন এবং বাংলাদেশ স্টীল মিলস্ করপোরেশনকে একীভূত করে ১লা জুলাই ১৯৭৬ তারিখে বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল করপোরেশন(বিএসইসি) গঠিত হয়। প্রারম্ভিক ভাবে বাংলাদেশ স্টীল মিলস্ করপোরেশন ও বাংলাদেশ প্রকৌশল ও জাহাজ নির্মাণ করপোরেশনের নিয়ন্ত্রণাধীন ৬২টি শিল্প প্রতিষ্ঠান নিয়ে বিএসইসি কার্যক্রম শুরু করে। এর পরে বিএসইসি নিজস্ব উদ্যোগে ১৯৮৪ সালে বাংলাদেশ ব্লেড ফ্যাক্টরী লিঃ প্রতিষ্ঠা করে। বর্তমানে করপোরেশনের ব্যবস্থাপনায় ৯ টি শিল্প প্রতিষ্ঠান চালু রয়েছে। এই শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলির মধ্যে এটলাস বাংলাদেশ লিঃ, ন্যাশনাল টিউবস লিঃ এবং ইস্টার্ন কেবলস লিঃ এর ৪৯% শেয়ার জনসাধারণ এবং স্ব-স্ব শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক, কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের নিকট ইস্যু করা হয়েছে।বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল করপোরেশনের নিয়ন্ত্রণাধীন শিল্প প্রতিষ্ঠান সমূহ দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। বিএসইসি’র প্রতিষ্ঠান সমূহ বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি যথা বৈদ্যুতিক কেবলস, ট্রান্সফরমার, ফ্লোরেসেন্ট টিউব লাইট, সিএফএল বাল্ব, সুপার এনামেল কপার ওয়্যার, ইত্যাদি উৎপাদন করে দেশের বিদ্যুৎ বিতরণ খাতে অবদান রাখছে। তাছাড়া বিএসইসি বাস, ট্রাক, জীপ, মোটর সাইকেল ইত্যাদি সংযোজন পূর্বক সরবরাহ করে দেশে পরিবহন ব্যবস্থা সচল রাখার ক্ষেত্রে অবদান রাখছে। বিএসইসি’র প্রতিষ্ঠানসমূহ জিআই/এমএস/ এপিআই পাইপ, সেফটি রেজর ব্লেডও উৎপাদন করে থাকে।বিগত ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে বিএসইসি’র শিল্প প্রতিষ্ঠাসমূহ ৬৭২.৪০ কোটি টাকা মূল্যের পণ্য উৎপাদন ও ৮৬৪.১৩ কোটি টাকা বিক্রয় করে ৭৩.৬৭ কোটি টাকা নীট মুনাফা (করপূর্ব) অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়াও রাষ্ট্রীয় কোষাগারে ভ্যাট-ট্যাক্স বাবদ ২৭৭.৬৭ কোটি টাকা জমা প্রদান করেছে।


Share with :

Facebook Facebook